Kurulus Osman

কুরুলুস উসমান ভলিউম ৯৬ বাংলা সাবটাইটেল অনুবাদ মিডিয়া

ভলিউম দেখতে পোস্টের নিচে যান

উজির বিভিন্ন সংস্কার নীতিকে পুনরায় শুরু করে। ক্ষেত্রবিশেষে পরিবর্তন আনে প্রধান উজির । এর অন্যতম নির্দিষ্ট একটি ছিল দীর্ঘদিনের অপব্যবহার রোধকরণের জন্য জানিসারিসদের বাহিনীকে ঢেলে সাজানো । প্রথমবারের মতো সাম্রাজ্যের সব অংশ থেকে উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের সভা অনুষ্ঠিত হয় রাজকীয় প্রাসাদে।

স্বতঃস্ফূর্ত বিতর্কের শেষে সরকারের মাঝে একমত্য প্রতিষ্ঠিত হয়। এতে করে আইন ও নাগরিক বিষয়ে সবার দায়িত্ব  সুপ্রতিষ্ঠিত হয় । নিজের ক্ষমতার প্রতি হুমকি আসবে ভেবে সুলতান মাহমুদ এদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হন। উলেমা ও জানিসারিসরা চুপচাপ সহ্য করে যায় ও প্রধান উজির নিজের আলবেনীয় ও বসনিয়ার বাহিনীকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠায়।

জানিসারিসরা আবারো বিদ্রোহে খেপে ওঠে । বায়রাকদারকে তার প্রাসাদে আক্রমণ করা হয়। আগুন লাগিয়ে দেয়া ও বায়রাকদার পালিয়ে গেছে এমন একটি টাওয়ার জ্বালিয়ে ছারখার করে দেয়া হয়। এভাবে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যায় প্রধান উজির। প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী অবশেষে বিজয় লাভ করে। পুরাতন বিশৃঙ্খল অবস্থা পূর্বের মতোই শক্ত হয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়।

সুলতান তৃতীয় সেলিমের সংস্কারকাজ কিছুদিনের জন্য মুলতবি হয়ে যায়। অটোমান সুলতানদের মাঝে একাকী সেলিম সাম্রাজ্যের আমূল সংস্কারের কাজে আত্মনিয়োগ করেছিলেন। ইসলামের এঁতিহ্যের সাথে সংগতি রেখে পূর্বদিকে যা করে গেছেন সুলতান সুলেমান আড়াইশ বছর পূর্বে, সেলিম ধর্মনিরপেক্ষতার ওপর ভিত্তি করে পশ্চিমে তাই করতে উদ্যোগী হয়েছিলেন।অটোমান সাম্রাজ্যকে পশ্চিমা সভ্যতার পথে পরিচালনায় একাগ্র হলেও নিজের জনগণের চরিত্র সম্পর্কেই অন্ধ রয়ে গিয়েছিলেন সুলতান সেলিম।

জনগণের কল্যাণ চাইলেও পূর্বপুরুষদের ন্যায় যুদ্ধক্ষেত্রে নেতৃত্‌ দিতে ব্যর্থ হন সুলতান; আর এভাবে তাদের শ্রদ্ধা ও বিশ্বাস অর্জনে ব্যর্থ হন সুলতান। অন্যদিকে অবিবেচনা ও পশ্চিমা ধ্যান ধারণার প্রতি অতিরিক্ত আগ্রহবশত নিজের কর্মচারীদের মাঝে সংস্কারবিরোধিদের কুসংস্কারের আগুনে ঘি ঢেলে তাদের প্রতিদ্বন্দ্ী হিসেবে শক্ত করে তোলেন সুলতান।

See also  অনুবাদ মিডিয়া কুরুলুস উসমান ভলিউম ৮৯ বাংলা সাবটাইটেল

স্পষ্টভাবে বলতে গেলে সেলিমের ব্যর্থতা নিহিত আছে একটি রূঢ় সত্যের মাঝে। তিনি একটি অসম্ভব উদ্যোগ নিয়েছিলেন অটোমান ইতিহাসের এই পর্যায়ে এসে এক আঘাতেই এঁতিহ্যবাহী সরকার ব্যবস্থা পরিবর্তন করতে চেয়েছেন সুলতান। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে গড়ে ওঠা সাম্রাজ্য এখনো একগুঁয়ে ও অমলিন রয়ে গেছে। নিজের সাম্রাজ্যে পরিবর্তন আনার ক্ষেত্রে সেলিমের প্রয়োজন ছিল মৌলিক কাঠামোতে পুনরায় শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা । বর্তমান প্রতিষ্ঠানসমূহকে ঢেলে সাজানো, যেন সিদ্ধান্তসমূহ সহজেই কার্যকর করা সম্ভব হয়।

মোটের ওপর একজন সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী সুলতান হিসেবে সব কিছুর ওপর সীমাবদ্ধতা কায়েম করা। কিন্তু সেলিম এমনটা ছিলেন না ও তার সময়ে এ রকম একটি উদ্দেশ্য সহজে অর্জিত হওয়ার মতো ছিল না। একমাত্র যা করতে পারতেন তিনি তা হলো পুরোনো প্রক্রিয়া নতুন ধারণার অবতারণা করা । এখানেই তিনি ব্যর্থ হয়েছেন।

সেলিমের পুনঃসংস্কার নীতিতে ক্ষুদ্র অভিজাত সম্প্রদায়ের মনোভাব প্রকাশিত হয়েছে, যারা পূর্বতন সংস্কার টিউলিপ যুগ থেকে সামান্য এগিয়ে গেছে। এর বাইরে বিশাল ও শক্তিশালী অংশে ছিল সেনাবাহিনী, দুর্নীতিপরায়ণ আমলাতন্ত্র ও উলেমা, যিনি কিনা ইসলামের কণ্ঠ হিসেবে সুলেমানের সংস্কারের সুবিধা ভোগ করছেন। আভ্যন্তরীণ ভারসাম্য রক্ষায় এরা বড় ভূমিকা পালন করছে।

কিন্তু গুণগত ভাবে এরা অধঃপাতে নেমে গিয়ে পার্থিব স্বার্থরক্ষায় ক্ষমতার অপব্যবহারে মেতে ওঠে। ঘুষ আদান-প্রদান, ভালো মুদ্বা তৈরি, ধর্মীয় ফাউন্ডেশনসমূহের যথেচ্ছ নিয়ন্ত্রণ, নিচু স্তরে ও কর্মচারীরা একই কাজে প্রবৃত্ত হয়। জানিসারিসরাও যেমন বাণিজ্যিক কাজে জড়িয়ে পড়ে। এদের প্রতিটি গোষ্ঠী যে কোনো পরিবর্তনে অনেক কিছু হারানোর ভয়ে ভীত হয়ে ওঠে। তাই প্রাটীন স্থিতাবস্থা বজায় রাখার প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠে প্রভাব এবং সম্পদ ও এতে বেঁচে যাবার প্রেরণা থাকে।

See also  অনুবাদ মিডিয়া কুরুলুস উসমান ভলিউম ৯৭ বাংলা সাবটাইটেল

এমন একটি দেশ যেখানে শিল্প এখনো নবজাতক শিশু এবং বাণিজ্য বেশির ভাগই বিদেশিদের হাতে, সেখানে সামাজিক ও অর্থনৈতিক এমন কোন বাধা ছিল না, যা ফরাসি বিপ্লবের ন্যায় কোনো বিপ্লবে ইন্ধন জোগাতে পারে। তাই সংক্ষারবাদীদের ক্ষুদ্রগোষ্ঠীর পেছনে কোনো চাপ প্রয়োগকারী গোষ্ঠী ছিল না।

তাই ধন্যবাদ ফরাসিমুখী নীতিসমূহকে; এই ছিল সুলতান তৃতীয় সেলিমের ভাগ্য । যদিও তীর সংস্কারকর্মসমূহ ব্যর্থ হয়েছে; কিন্তু তিনি নতুন এবং পশ্চিমের আলোকিত ধারণার দিকে চালিত একটি আন্দোলনের সূচনা করে গেছেন। তার সময়ের পরে ইসলামের দুর্গে আঘাত হানাটাই ভাগ্যলিপি হয়ে যায়। উনবিংশ শতাব্দীজুড়ে ধীরে ধীরে এর দিগন্ত উন্মোচিত হয়। ছোট্ট একটি প্রবাহ দ্রুতগতির বন্যায় রূপ নেয়। ঘটনাক্রমে এই অপরিচিত মাটিতে ফরাসি বিপ্রবের মূল চেতনা, স্বাধীনতা ইসলামের ভেতরের বৈধ ধারণা ধীরে ধীরে রাজনৈতিক রূপ লাভ করে; সমতা প্রথম দিকে ইসলামের মাঝে নিমজ্জিত সমাজসেবায় এতিহ্যবাহী হিসেবে এর কিছুটা কম গুরুত্ব ছিল ও শিকড় গড়ে তোলে।

ওসমান রাজবংশের একমাত্র জীবিত উত্তরাধিকারী হিসেবে দ্বিতীয় মাহমুদ সংক্কারবাদী সুলতান হিসেবে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিলেন। নিজের শতকের অরাজকতা সত্ত্বেও মাহমুদ সুলতান বিজয়ী বীর দ্বিতীয় মাহমুদ ও আইনপ্রণেতা সুলতান সুলেমানের মতোই যোগ্য ছিলেন ও সমান কাতারের সম্মান অর্জন করেছিলেন। অটোমান সাম্াজোর পিটার দ্য গ্রেট ছিলেন সুলতান মাহমুদ । মাহমুদের মাতা ফরাসি হওয়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা থাকলেও তিনি নিজে কোনো বিদেশি ভাষা জানতেন না।

See also  কুরুলুস উসমান ভলিউম ৯৮ বাংলা সাবটাইটেল অনুবাদ মিডিয়া

এছাড়া প্রাচীন এতিহ্যবাহী ইসলামিক শিক্ষার জন্য পশ্চিমা ধ্যান-ধারণার সাথে কোনো প্রত্যক্ষ সংস্পর্শ না থাকলেও সুলতান
দ্বিতীয় মাহমুদ উজ্জীবিত হয়েছেন সুলতান তৃতীয় সেলিম দ্বারা । তাই ধৈর্যের সাথে টিকে থেকে প্রায় দুই দশক কেটেযাওয়ার পর মাহমুদ সমর্থ হন সাম্রাজ্যের সংস্কারকাজের জন্য সালতানাতে প্রয়োজনীয় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করার।

এই মধ্যবর্তী সময়টুকুতে তার শক্তি নিঃশেষিত হয় রাশিয়ার সাথে যুদ্ধে । নেপোলিয়ন অটোমান সাম্রাজ্যের ধ্বংস সম্পর্কে একরকম নিশ্চিত ছিলেন।তাই রাশিয়ার জার আলেকজান্ডারের সাথে মিত্রতা গড়ে তোলেন। ১৮০৭ সালে জারের ইংরেজ মিত্রর বিরুদ্ধে রাশিয়া ও ফ্রান্স ইউরোপে ডিভিশন গড়ে তোলে। গোপনে অটোমান সাম্রাজ্য খণ্ড বিখণ্ড করার পরিকল্পনায় মেতে ওঠে দুই পরাশক্তি ফ্রাস ও রাশিয়া। অটোমান সাম্রাজ্য মূলত এশিয়া ভূখণ্ডে কেন্দ্রীভূত ছিল।

পূর্ব বলকান ইউরোপ রাশিয়া দাবি করে ও ফ্রান্স, আলবেনিয়া, গ্রিস, ক্রিট ও দ্বীপপুঞ্জের অন্যান্য দ্বীপসমূহ নেওয়ার পরিকল্পনা করে। যদি রাশিয়া ও তুরস্কের ছন্দ অবসানে তুর্কিরা ফ্রান্সের মধ্যস্থতায় রাজি না হয়, তাহলে ফ্রান্স রাশিয়ার সাথে একই উদ্দেশ্যে শামিল হবে। “ইউরোপকে বিরক্তিকর তুর্কিদের” হাত থেকে রক্ষা করা। পোর্তে ফ্রালের প্ররোচনায় শান্তির শর্ত ব্যতীত রাশিয়ার সাথে যুদ্ধবিরতি চুক্তি করলেও দুই বছর পরে পুনরায় দ্বন্ব বেড়ে যায়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button