Destan

দেস্তান ভলিউম ২৩ বাংলা সাবটাইটেল অনুবাদ মিডিয়া

দেস্তান ভলিউম ২৩ বাংলা সাবটাইটেল অনুবাদ মিডিয়া

দ্বিতীয় অটোমান সেনাবাহিনীর মুখোমুখি হয় নেপোলিয়ন। আবোকির যুদ্ধে বেয়নেটের আঘাতে জর্জরিত তুর্কিদের বাধ্য করে নেপোলিয়ন সমুদ্ধে পালিয়ে যেতে। আর এ বন্দরের পানিতে পাগড়ি উঠানামা করতে থাকে; কেননা হাজারে হাজারে তুর্কি সেনা পানিতে ডুবে যায়। মামলুকে নেপোলিয়ন তার হৃত সম্মান ফিরে পেলেও ধন্যবাদ ব্রিটিশ নৌ-শক্তিকে। কেননা পূর্বে সাম্রাজ্য বিস্তুতির তার সংক্ষিপ্ত স্বপ্ন ভেঙে চুরমার হয়ে যায়।

গোপনে নিজের স্টাফদের নিয়ে ফ্রান্সে ফিরে যায় নেপোলিয়ন। এরপর নিজের সাগ্ত্রাজ্য প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দিক বদলে পশ্চিমের দিকে তাক করেন ও ছুড়ে ফেলে নিজেকে প্রথম কনস্যুল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন। দুই বছর পরে অ্যাংলো, তার্কিশ বাহিনী জেনারেল স্যার রালফ্‌ আ্যাবারক্রোমব্রি নেতৃত্বে মিশরে অবতরণ করে বিপথগামী ফরাসি বাহিনীকে
আত্মসমর্পণে বাধ্য করে ফ্রান্সে ফিরিয়ে নিতে । ফলে ১৮০২ সালে স্বাক্ষরিত হয় ।

মিশর এবং অন্যান্য ভূখণ্ডের ওপর সুলতানের অধিকার স্বীকৃত হয় ও পাশাদের পরিবর্তে মামলুকদের দায়িতৃ দেয়া হয়। মিশর থেকে ইংরেজ বাহিনীও চলে যায়।কিন্ত নেপোলিয়নের কারণে লোহিত সাগর ও এর আশপাশে ব্রিটেন নতুন নীতি প্রণয়ন করে। ব্রিটেন পরিষ্কারভাবে ব্যক্ত করে যে যদি ভারতকে মিশর আক্রমণ করে তাহলে ভারতও মিশরকে আক্রমণ করবে। একই ভাবে অন্যান্য অটোমান সীমানার উপকূলেও সাবধানতা অবলম্বন করা হয়।

See also  অনুবাদ মিডিয়া দেস্তান ভলিউম ২১ বাংলা সাবটাইটেল

পারস্য উপসাগরে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি ওমান থেকে ফরাসিদের বিতাড়িত করে। এছাড়াও বাগদাদে স্থায়ীভাব প্রতিষ্ঠিত হয়ে বসরাতে “তুর্কি আরবীয় অঞ্চলের রাজনৈতিক দূত” হিসেবে ব্রিটিশ কনস্যুল কাজ শুরু করে। আর এভাবেই নেপোলিয়নের ব্যর্থতায় উৎসাহ জুগিয়ে ব্রিটিশ সফলতা বেড়ে চলে ।

স্বল্প সময়ের জন্য আ্যামিয়েন চুক্তি অনুযায়ী আইয়োনিয়ান দ্বীপপুঞ্জের ওপর ফ্রান্স তার মালিকানা তুলে নেয় ও রাশো-তার্কিশদের হাতে ছেড়ে দেয়। পোর্তের নিযুক্ত চতুর প্রশাসক আলী পাশা, নিজের বাহিনী নিয়ে বেশ কিছু প্রতিবেশী গোত্রকে উৎখাত করে-_এদের মাঝে খ্রিস্টান বিদ্রোহী সুলিয়টরাও ছিল। এভাবে ইপিরাসের পশ্চাদভূমি ও নিম্ন আলবেনিয়ার ওপর স্বায়ত্তশাসন কায়েম করে আলী পাশা ।

দেয়। ফরাসিদের শর্তাধীন আত্মসমপর্ণ পুনরায় নবায়ন করে কৃষ্ণসাগরে বাণিজ্য ও নৌ-চলাচলের অধিকার দেয়া হয়। আর এর ফলে ফরাসি বণিকদের তৎপরতায় চিন্তিত হয়ে ওঠে রাশিয়া ও ব্রিটেন। তিন বছরের ব্যবধানে ইস্তামুলে ফরাসি সম্মান পুনরায় ফিরে আসে । এ অবস্থার আরো উন্নতি ঘটে মিশরে নেপোলিয়নের বাহিনীর সহিষ্কুতা ও সফলতায়। পূর্বের মতোই উভয়ের মিত্রতা শক্তিশালী হয়ে ওঠে।

See also  অনুবাদ মিডিয়া দেস্তান ভলিউম ২৪ বাংলা সাবটাইটেল

নতুন ফরাসি কূটনীতিক পোর্ভেতে তার দেশের হৃত প্রভাব ফিরিয়ে আনতে ওঠে পড়ে লেগে যায়। একই ভাবে প্যারিসে নতুন অটোমান কূটনীতিক ফরাসি সব কিছুতে নিজের আগ্রহ লুকিয়ে রাখতে ব্যর্থ হয়।সুলতান বিদেশিদের কাছ থেকে নিশ্বাস ফেলার সুযোগ পেয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে সার্বীয়ার আভ্যন্তরীণ ছন্দ নিয়ে। এ অঞ্চলে জানিসারিসরা অরাজকতা সৃষ্টি করে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি অবাধ্য হয়ে ওঠে।

বেলথেডের প্রাদেশিক গভর্নরকে হত্যা করে দেশটিকে চারজন প্রধানের অধীনে বিভক্ত করে দেয় জানিসারিসরা সিপাহিদের ভূমি দখল করে; রায়াদের দমন-নিপীড়ন শুরু করে রায়ারা। খ্রিস্টান কৃষক সম্প্রদায় দূত পাঠিয়ে ইস্তাম্বুলের কাছে আবেদন জানায় । তারা প্রার্থনা জানায় “এসো আমাদেরকে এসব দুষ্ট লোকদের হাতে থেকে মুক্ত করুন; আর যদি তা না পারেন, তাহলে অন্তত জানিয়ে দিন, যাতে আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি যে পর্বতে, জঙ্গলে অথবা নদীতে পালিয়ে গিয়ে এই দুদর্শাময় অস্তিত্রে সমাপ্তি টানতে পারব কিনা ।

কিন্ত নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠায় সুলতানের সমস্যা হয়ে দীড়ায় নিজের শক্তির অভাব । জানিসারিসদের হুমকি দিয়ে শুধু খরিস্টানদের নির্বিচারে হত্যায় ইন্ধন জোগান সুলতান। তাই এরপর তিনি স্থানীয় সিপাহি যাদের উচ্ছেদ করেছিল জানিসারিসরা, বসনিয়ার পাশার অধীনে বিশ্বস্ত সেনাবাহিনী ও অল্পসংখ্যক তুর্কি ও মুসলিমদের মাধ্যমে জানিসারিসদের বিরুদ্ধে সাবীয়দের বিদ্বোহে সমর্থন প্রদান করেন সুলতান। মুসলিম প্রভুর হয়ে এই খ্রিস্টান কৃষক সমাজ বিত্রোহী হয়ে ওঠে ।

See also  দেস্তান ভলিউম ২৫ বাংলা সাবটাইটেল অনুবাদ মিডিয়া

জানিসারিসদের সমর্থন দেয় ভিদিনের পাশা ও শহরের ধর্মান্ধ মুসলিম অংশ। কিন্তু এরা সকলেই পরাজিত হয় ও তাদের
স্বৈরশাসন সমূলে উৎপাটিত হয়, যখন খ্রিস্টান বিদ্রোহীরা সাবীয় ক্যাম্পে চারজন মৃত জানিসারিস প্রধানের খপ্ডিত মস্তক প্রদর্শন করে। পুরো সাবীয়া চলে যায় সাবীয়দের হাতে, শুধু বেলগ্রেড ও অন্যান্য কিছু দুর্গে সুলতানের সেনাবাহিনী রয়ে যায়।

দেস্তান ভলিউম ২৩ বাংলা সাবটাইটে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button